আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ৩০ সেপ্টেম্বর : যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় প্রথমবারের মতো বিমান হামলা শুরু করেছে রাশিয়া। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিদেশে শক্তি প্রয়োগের বিষয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দেশটির পার্লামেন্টের অনুমতি পাওয়ার পর বুধবার প্রথমবারের মতো সিরিয়ায় এই বিমান হামলা চালানো হয়।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সিরিয়াতে ‘সন্ত্রাসীদের’ অবস্থান লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে মস্কো।

১৯৭৯ সালে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন আফগানিস্তান আক্রমণ করার পর এই প্রথমবারের মতো দূরবর্তী কোনো দেশে যুদ্ধে জড়াল রাশিয়া।

ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের মোকাবেলায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বৈঠকের পরই এ হামলা চালানো হলো।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, শত্রুর আক্রমণ ঠেকাতে আগেই হামলা চালিয়ে তাদের দুর্বল করতেই এই বিমান হামলা চালানো হচ্ছে। একই সঙ্গে হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ইসলামিক স্টেট জঙ্গিরা রাশিয়াকে তাদের লক্ষ্যে পরিণত করার আগেই মস্কো তাদের শেষ করে দিতে পারে।

পুতিন বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলায় একমাত্র সঠিক পন্থা হচ্ছে…আগেই হামলা চালিয়ে তাদের দুর্বল করে দেওয়া। সন্ত্রাসীরা আমাদের দিকে এগিয়ে আসবে- এই অপেক্ষায় না থেকে আগেই যেসব স্থান সন্ত্রাসীরা ইতিমধ্যে দখল করেছে সেখানে হামলা চালিয়ে তাদের ধ্বংস করে দেওয়াই সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলার একমাত্র পথ।’

সিরিয়ার নিরাপত্তাবাহিনী সূত্রের বরাত দিয়ে এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার যুদ্ধবিমান দেশটির তিনটি প্রদেশে হামলা চালিয়েছে।

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘রাশিয়া আমাদের সংকেত দিয়েছিল যে তারা সিরিয়ায় হামলা চালাতে যাচ্ছে।’ সিরিয়ার হোমস নগরীর কাছেই এ হামলা চালানো হয়েছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *