স্পোর্টস ডেস্ক, ১১ সেপ্টেম্বর : কোচ চন্দিকা হাথুরুসিংহে জানিয়েছেন তার ভাবনায় এখন কেবলই বাংলাদেশ। এখানে বর্তমানে তার কাজ করার যে সুবিধা বিদ্যমান তাতে তিনি খুবই খুশি। গত কদিনে তার শ্রীলঙ্কা কোচ হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে অনেক কথাবার্তা হওয়ার পর এই প্রথম মুখ খুললেন হাথুরুসিংহে।

শ্রীলঙ্কান এই কোচ দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের পর ছুটি কাটিয়ে ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকা ফেরেন। কিন্তু গত কদিনে একবারও বিষয়টি নিয়ে কোন কথা বলেননি। সবশেষে গতকাল বৃহস্পতিবার মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে তিনি গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে পুরো বিষয়টিতে নিজের অবস্থান তুলে ধরেন। লঙ্কান এই কোচ অবশ্য দ্বীপ দেশটি থেকে কোন আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব না পাওয়ার কথাও উল্লেখ করেন কাল।

ইতোমধ্যে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি) অন্তর্র্বতীকালীন কোচ হিসাবে তাদের হেড অব কোচিং জেরম জয়ারতেœকে নিয়োগ দেয়। তারপরই মুখ খোলেন বাংলাদেশ কোচ।

হাথুরুসিংহে এ ব্যাপারে বলেন, ‘অফিসিয়ালি আমার সঙ্গে ওদের (শ্রীলঙ্কা বোর্ড) কোনো যোগাযোগ হয়নি। আমি যেহেতু পেশাদার কোচ, কোথাও চাকরির সুযোগ সৃষ্টি হলে নাম আসতেই পারে। আপাতত এটাই বলার আছে আমার।’ এর সাথে যোগ করেন, ‘আমি জানি না শ্রীলঙ্কার খবরটি সত্যি নাকি মিথ্যা। কিছু তো হতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এই মুহূর্তে আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হলো বাংলাদেশকে কোচিং করানো। যাতে আমরা পরে সিরিজটা জিততে পারি। নিজের দেশে কোচিং করাতে সবারই ভালো লাগবে। কিন্তু সেটা হতে হবে সঠিক সময়ে। এই মুহূর্তে আমি যা করছি, সেটা নিয়ে খুবই খুশি। শুধু ক্রিকেটাররা বা আমার স্টাফরা নয়, বোর্ডও অনেক সহায়তা করছে আমাদের। দল হিসেবে আমরা ভালো করছি। সবকিছু ঠিক ভাবেই এগোচ্ছে। এই মুহূর্তে এখানে আমি খুবই খুশি।’

গত বছরের ১৯ মে বাংলাদেশের প্রধান কোচ হিসাবে যোগ দেয়া হাথুরুসিংহে দুই বছরের চুক্তিতে কাজ করছেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সাথে হাথুরুসিংহের চুক্তি আছে আগামী বছরের মাঝামাঝি পর্যন্ত। কয়েকদিন আগে বিসিবি’র প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরি সুজন গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, এই কোচকে নিয়ে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা আছে বোর্ডের। সঙ্গত কারণেই বিসিবির প্রতি তার প্রসন্নতার কথা জানান হাথুরুসিংহে। কাল এ প্রসঙ্গে লঙ্কানটি বলেন, ‘এটা আত্মবিশ্বাসের ব্যাপার। চাকরিজীবী হিসেবে বসরা যখন বলে আমাকে নিয়ে খুশি ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা আছে, সেটা আমাকে অনেক বেশি নিরাপত্তা দেয়। আমি এজন্য খুবই কৃতজ্ঞ।’

কোচ হিসাবে তার নিয়োগের পর থেকেই বাংলাদেশ দল ভাল সময় কাটাচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠা দিয়ে যার শুরু। এরপর পাকিস্তানকে ওয়ানডেতে হোয়াইট ওয়াশের পর ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার মতো প্রচণ্ড শক্তিশালী দলকেও সিরিজে হারায় বাংলাদেশ। এখন এই কোচের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়ার দুই টেস্টের সফরটি। সে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দলে যেই আসুক বা না আসুক, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলা আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ। তবে আমি সত্যিই আশাবাদী, কারণ এই কন্ডিশন ওদের চ্যালেঞ্জ জানাবে। আমরাও দল হিসেবে উন্নতি করছি। আমি আশাবাদী যে এমন কিছু আমরা করতে পারব ওদের বিপক্ষে আগে যা কখনো করতে পারিনি। তবে এটাও বলতে হবে, অস্ট্রেলিয়াকে হালকা ভাবে দেখার কিছু নেই। ক্রিকেটার বের করার সেরা সিস্টেমটা ওদের আছে। ওদের ‘এ’ দল সমপ্রতি ভারতে দারুণ খেলেছে। কাজেই এই সিরিজ চ্যালেঞ্জিং হবেই।’

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *