নোয়াখালী, ১৯ সেপ্টেম্বর : নোয়াখালীর হাতিয়ার নিঝুম দ্বীপের দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর থেকে এমবি র’না নামের একটি মাছ ধরা ট্রলারসহ ১৮ জেলেকে জলদস্যুরা অপহরণ করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

একই সময় জলদস্যুরা ওই এলাকায় আরও প্রায় ১৭-১৮টি ট্রলার ডাকাতি করে ইলিশ মাছ ও ট্রলারে থাকা মূল্যবান মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে। পুলিশ কয়েকটি ট্রলারে ডাকাতির ঘটনা নিশ্চিত করলেও অপহরণের খবর নিশ্চিত করেনি।

হাতিয়া বোট মালিক সমিতির সভাপতি রাশেদ উদ্দিন আজ রাত পৌনে ১০টায় বলেন, চট্টগ্রামের জলদস্যু কালু বাহিনীর ২০-২৫ সদস্য দুপুর বারটার দিকে নিঝুম দ্বীপের দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা জেলেদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়।

রাশেদ উদ্দিন আরও জানান, এ সময় জলদস্যুরা প্রায় ১৭-১৮টি মাছ ধরা ট্রলারের থাকা জেলেদের এলোপাতাড়ি মারধর করে মাছ, জাল ও অন্যান্য মালামাল লুট করে। জলদস্যুরা যাওয়ার সময় এমবি র’না নামের একটি ট্রলার, ট্রলারের সারেং আকরাম হোসেনসহ ১৮ জেলেকে অপহরণ করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।

ডাকাতির শিকার হওয়া ট্রলারগুলোর মধ্যে আটটি ট্রলারের নাম জানিয়েছেন রাশেদ উদ্দিন। এগুলো হলো এমবি র’না, এমবি মায়া, এমবি সুলতানা, এমবি রাব্বি, এমবি সাখাওয়াত, এমবি রহিম, এমবি মা জননী ও এমবি মায়ের দোয়া। তিনি জানান, এসব ট্রলার আজ সন্ধ্যায় হাতিয়ার জাহাজমারা কাঠাখালি ঘাটে এসে পৌঁছালে তাঁরা ডাকাতির ঘটনাটি জানতে পারেন।

শুক্রবার রাতে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর’ল হুদা দাবি করেন, তিনি এই প্রতিবেদকের কাছেই প্রথম ঘটনাটি শুনলেন। এরপরই সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি-হেডকোয়ার্টার) মো. জসিম উদ্দিন চৌধুরী বঙ্গোপসাগরে কয়েকটি ট্রলার ডাকাতির ঘটনা নিশ্চিত করেন। কিন্তু কাউকে অপহরণের খবর তিনি নিশ্চিত করতে পারেননি।

অন্যদিকে, কোস্টগার্ডের হাতিয়া স্টেশনের কমান্ডার লে. তানভির আহমেদ বলেন, নিঝুম দ্বীপের প্রায় ১২ কিলোমিটার দূরে বঙ্গোপসাগরে হাতিয়ার ১৮ জেলে অপহৃত হওয়ার খবর তাঁরা পেয়েছেন। কিন্তু এলাকাটি তাঁদের সীমানায় না হওয়ায় বিষয়টি দেখার জন্য কুতুবদিয়া এলাকার কোস্টগার্ডকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *