স্পোর্টস ডেস্ক, ১ অক্টোবর : এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের প্রথম ম্যাচে জিততে পারেনি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। কিন্তু দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়াল তারা। এবার খেলা ছিল নিজেদের মাঠে। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে। আর এই ম্যাচে পেছন থেকে উঠে এসে তারা ওল্ফসবার্গকে হারালো ২-১ গোলে।

মঙ্গলবার ইংল্যান্ডের দুই ক্লাব চেলসি ও আর্সেনাল চ্যাম্পিয়ন্স লিগে হেরেছে। আর এদিন বিপদে পড়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডও। খেলার ৪ মিনিটের সময়ই স্বাগতিক সমর্থকদের স্তব্ধ করে দেন ড্যানিয়েল ক্যালিগিউরি। ছয় পাসের গোল করেন তিনি। কিন্তু ক্যালিগিউরির ভুলেই ম্যাচে ফেরে ম্যানইউ। হ্যান্ডবল করেছিলেন বিপজ্জনক এরিয়ায়। পেনাল্টি পায় ম্যানইউ। ৩৪ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করেন হুয়ান মাতা। মাতাই এরপর ৫৩ মিনিটে পাস দিয়েছিলেন ক্রস স্মলিংকে। জয়সূচক গোলটি করেন স্মলিং।

বুন্দেসলিগার দলটি সমতা ফেরানোর সুযোগ পেয়েছিল। আসলে খুব কাছেও গিয়েছিল। আর্সেনালের সাবেক স্ট্রাইকার নিকলাস বেন্দনার খুব কাছ থেকে শট নিয়েছিলেন। ওয়েন রুনির শরীরে লেগে বল ফিরে আসে। গ্রুপ ‘বি’তে চার দলেরই পয়েন্ট এখন সমান তিন।

ম্যানইউ ম্যানেজার লুই ফন গাল এই সপ্তাহেই বলেছিলেন, তার দলের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের স্বপ্ন বাস্তবসম্মত। ২০০৮ সালে শেষবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জিতেছিল ম্যানইউ। এরপর ২০০৯ ও ২০১১ সালে ফাইনালে হেরেছিল। আর ফন হাল আয়াক্সের সাথে এই প্রতিযোগিতা জিতেছিলেন ১৯৯৫ সালে।

কোচ ম্যাচের শেষে বলেছেন, এটা কঠিন ম্যাচ ছিল। কারণ একেবারে শুরুতেই তারা গোল করে ফেলে। এরপর আমরা ভালো খেললাম। অনেক সুযোগ তৈরি করেছি। ভাগ্যক্রমে একটি পেনাল্টি পেলাম। ফন হাল ম্যাচ নিয়ে আরো বলেছেন, আমাদের আরো সুযোগ এসেছিল। রুনি ও ডিপে গোল করতে পারতো। আমরা বেশ ভুগছিলাম। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আরেকটি গোল পেলাম। খেলোয়াড়দের অনেকে ক্লান্ত হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু আমরা হাল ছাড়িনি। আমরা কতগুলো সুযোগ নষ্ট করেছি? হয়তো একটা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *