আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ৪ অক্টোবর : আফগানিস্তানের কুন্দুজ শহরে হাসপাতালের ওপর বোমাবর্ষণকে ক্ষমার অযোগ্য এবং ‘সম্ভবত একটি অপরাধ’ বলে আখ্যায়িত করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান জায়েদ রাদ আল-হুসেইন।

ওই ঘটনায় নিহতের সংখ্যা এখন ১৯-এ উঠেছে – যার বেশির ভাগই চিকিৎসাকর্মী – যারা আন্তর্জাতিক দাতব্য প্রতিষ্ঠান মেদসাঁ সঁ ফঁতিয়ের হয়ে কাজ করতেন। নিহত অন্যরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগী

যার মধ্যে শিশুও রয়েছে।

মেদসাঁ সঁ ফঁতিয়ের ৯ জন কর্মী এই হামলায় নিহত হয়েছেন। আরো প্রায় ৩০ জন এখনো নিখোঁজ রয়েছেন।

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এ্যাশ কার্টার একে ‘তীব্র লড়াইয়ের মধ্যে ঘটে যাওয়া একটি শোকাবহ ঘটনা’ বলে আখ্যায়িত করে জানিয়েছেন এর তদন্ত চলছে।

আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি বলেছেন, মার্কিন বাহিনী অধিনায়ক তার কাছে ঘটনা ব্যাখ্যা করে দু:খ প্রকাশ করেছেন।

তালিবান-অধিকৃত কুন্দুজ শহরের ওপর মার্কিন বাহিনী বিমান হামলা চালানোর সময় ওই হাসপাতালটি আক্রান্ত হয়।

মেদসাঁ সঁ ফঁতিয়ে জানিয়েছে, রাতের বেলা ৩০ মিনিটেরও বেশি সময় ধরে চালানো হয় এই বিমান হামলা হয় যদিও সে সময় বার বার নেটো এবং ওয়াশিংটনে ফোন করা হচ্ছিল।

মেদসাঁ সঁ ফঁতিয়ের আরো ১৯ জন কর্মী সহ মোট ৩৭ জন লোক গুরুতর আহত হয়েছেন।

গত সোমবার কুন্দুজ শহরে তালেবান যোদ্ধারা ঢুকে পড়ার পর থেকেই এর নিয়স্ত্রণ দখলের জন্য তীব্র লড়াই চলছে।

একটি আফগান টিভি চ্যানেলেল সংবাদদাতা বলেছেন, বিক্ষিপ্ত যুদ্ধ এখনো চলছে এবং তালেবান যোদ্ধারা আবাসিক ভবনে আশ্রয় নিয়ে সরকারি বাহিনীর ওপর হামলা চালাচ্ছে।

শহরের দোকানপাট এখনো পুরোপুরি বন্ধ। -সূত্র : বিবিসি বাংলা।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *