Search
Tuesday 17 May 2022
  • :
  • :

৫ বছর পর মাঠে নেমেই সেঞ্চুরি মালিকের

৫ বছর পর মাঠে নেমেই সেঞ্চুরি মালিকের

স্পোর্টস ডেস্ক, ১৪ অক্টোবর : প্রায় পাঁচ বছর পর পাকিস্তানের হয়ে টেস্ট খেলতে নেমেই সেঞ্চুরি করলেন শোয়েব মালিক এবং মালিকের রাজকীয় প্রত্যাবর্তনের দিনই জাভেদ মিয়াঁদাদের রেকর্ড ভেঙেছেন ইউনিস খান।

মঙ্গলবার আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে ছক্কা হাঁকিয়ে বেশ রাজসিকভাবে জাভেদ মিয়াঁদাদকে টপকে যান তিনি। পাকিস্তানের সাবেক কিংবদন্তি জাভেদ মিয়াঁদাদের রেকর্ড ২২ বছর টিকে ছিল। গতকাল থেকে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ টেস্ট রানের মালিক ইউনিস খান। মইন আলিকে ডিপ মিড উইকেট দিয়ে সোজা বাউন্ডারির বাইরে আছড়ে ফেলে মিয়াঁদাদের রেকর্ড ভাঙেন তিনি। অবশ্য এই টেস্টে খেলতে নামার আগে মাত্র ১৯ রানে পিছিয়ে ছিলেন ইউনিস। ছক্কা মেরে মিয়াঁদাদকে টপকানোর পর ব্যাট তুলে আবুধাবি স্টেডিয়ামের দর্শকদের অভিনন্দনের জবাব দেন ইউনিস। নন স্ট্রাইকিং এন্ডে তখন ব্যাট করছিলেন শোয়েব মালিক, যিনি টেস্ট ক্যারিয়ারে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। ২০১০ সালের আগস্টে বার্মিংহ্যামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ টেস্ট খেলেছিলেন মালিক। গতকাল সেই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম দিন শেষে ১২৪ রানে অপরাজিত থাকেন। অন্য প্রান্তে ১১ রান নিয়ে ব্যাট করছিলেন আসাদ সফিক। দিন শেষে পাকিস্তান ৪ উইকেটে ২৮৬ রান সংগ্রহ করে। সেঞ্চুরি খেকে বঞ্চিত হন মোহাম্মদ হাফিজ। ৯৮ রান করে তিনি স্টোকসের বলে এলবি ডবি্লউ হন।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আবুধাবি স্টেডিয়ামে গতকাল পাকিস্তানি ব্যাটিংয়ের মূল আকর্ষণ ছিল ইউনিসের রেকর্ড। আট হাজার ৮৩২ রান নিয়ে ২২ বছর ধরে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ টেস্ট রান সংগ্রাহক ছিলেন মিয়াঁদাদ। গতকাল নিজেকে পাকিস্তানের সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন ইউনিস। প্রথম পাকিস্তানি হিসেবে নয় হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করার হাতছানি এখন তার সামনে অপেক্ষা করছে। নভেম্বরে ৩৮ বছর পূর্ণ করবেন ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান। টেস্টে ৩০টি সেঞ্চুরি আছে তার। ১০২ টেস্টে ইউনিসের রান গড় ৫৪-এরও বেশি। পাকিস্তানি নির্বাচকরা ওয়ানডেতে ইউনিস খানকে উপেক্ষা করায় তার মধ্যে ক্ষোভ আছে।

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে টস জিতে আগে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান। শুরুতেই ২ রান করে শান মাসুদ আউট হন। এরপর শোয়েব মালিক এবং মোহাম্মদ হাফিজ ১৬৮ রানের জুটি গড়েন। নবম সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ২ রান দূরে থাকা অবস্থায় আউট হন হাফিজ। এ জুটি ভাঙার পর উইকেটে আসেন ইউনিস খান। সাবলীলভাবে ৩৮ রানের ইনিংস খেলার পর তিনি স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে আউট হন। মালিক ও ইউনিস খান ৭৪ রানের জুটি গড়েন। ইউনিস আউট হওয়ার পর অধিনায়ক মিসবাহ-উল হক বেশিক্ষণ দাঁড়াতে পারেননি। মাত্র ৩ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। ইংল্যান্ডের পেসার জেমস অ্যান্ডারসন দুটি উইকেট দখল করেন। একটি করে উইকেট নেন ব্রড ও স্টোকস। ইনজুরির কারণে এই টেস্টে খেলছেন না ইয়াসির শাহ।




Leave a Reply

Your email address will not be published.