Search
Monday 23 May 2022
  • :
  • :

২৫ বছর পর নিজ গ্রামে ফিরল ফজলু মিয়া

২৫ বছর পর নিজ গ্রামে ফিরল ফজলু মিয়া

জামালপুর : কোন মামলা কিংবা সাজাপ্রাপ্ত আসামি না হয়েও ২২ বছর সিলেট কারাগারে বন্দী জীবন কাটে নিরপরাধ ফজলু মিয়ার। দু’বার আদালত নিরপরাধ ফজলুকে মুক্তির আদেশ দিলেও প্রকৃত অভিভাবকের অভাবে মুক্তি দেয়া সম্ভব হয়নি। এবার মিলেছে ফজলু মিয়ার প্রকৃত অভিভাবকের খোঁজ।

জামালপুর সদর উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের সাউনিয়া গ্রামের মৃত বিশু মিয়া ও মজিরন বেওয়ার একমাত্র ছেলে ফজলু মিয়া। পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর জামালপুরের জেলা প্রশাসকের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় দীর্ঘ ২৫ বছর পর ফজলু মিয়া নিজের  গ্রামের বাড়ি জামালপুরে ফিরে এসেছে।

জামালপুর সদর উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের মৃত বিশু মিয়া এবং বাক প্রতিবন্ধী মজিরন বেওয়ার এক ছেলে ফজলু মিয়া ও এক মেয়ে হামিদা। ১৯৭৮ সালে কাউকে না জানিয়ে বাড়ি থেকে চলে যায় ফজলু মিয়া, ১৯৮৪/৮৫ সালে ফজলুর মামা আব্দুল হালিম ঢাকায় গেলে গুলিস্তানের একটি মনোহারী দোকানে ফজলুকে দেখতে পায়। সে সময় ফজলু জানিয়েছিলো, সিলেটের সৈয়দ গোলাম মাওলার মালিকানাধীন ওই দোকানে সে কাজ করছে, গোলাম মাওলার কোন সন্তান না থাকায় ফজলুকে ছেলে বানিয়েছে। পরে ১৯৮৭ সালে গোলাম মাওলাকে সাথে নিয়ে ফজলু জামালপুরের বাড়িতে এসে কয়েকদিন থেকেও যায়। শেষ বার  ১৯৯০ সালে ফজলু একাই বাড়িতে এসেছিলো, তারপর দীর্ঘদিন আর কোন যোগাযোগ করেনি পরিবারের সাথে।

এর দু’ এক বছর পর ফজলুর খোঁজ করতে মেজ মামা আব্দুস ছাত্তার সিলেটের সুরমা থানার ধরাধরপুর এলাকায় গোলাম মাওলার বাসা মীর বাড়িতে যান। সেখানে গিয়ে আব্দুস ছাত্তার জানতে পারেন, গোলাম মাওলা ও তার স্ত্রী মারা গেছেন। তাদের মৃত্যুর পর ফজলু মিয়া উন্মাদ হয়ে বাড়ি থেকে চলে গেছে তাই তার খোঁজ কেউ বলতে পারে না। এরপর দীর্ঘ ২৫ বছর কেটে যাওয়ায় সবাই ধরেই নিয়েছিল ফজলু মিয়া মারা গেছেন। কিন্তু সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে ফজলুর বিনা অপরাধে কারাভোগের সংবাদ প্রকাশ হলে তার খোঁজ পায় পরিবার। এ বিষয়ে গণমাধ্যমে সরেজমিন প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে জামালপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ শাহাবুদ্দিন খানের নজরে আসে ফজলুর বিনা অপরাধে কারাভোগের ঘটনাটি। বিষয়টি জানার পর ফজলু মিয়াকে তার প্রকৃত অভিভাবকের কাছে ফিরিয়ে আনতে জামালপুরের জেলা প্রশাসক সিলেটের জেলা প্রশাসনসহ ফজলুর জিম্মাদার তেতলী ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার কামাল উদ্দিন রাসেলের সাথে যোগাযোগ শুরু করেন।

গত ৫ দিন ধরে জেলা প্রশাসকের প্রত্যক্ষ তৎপরতায় অবশেষে বিনা অপরাধে সিলেট কারাগারে ২২ বছর বন্দী জীবন কাটানো ফজলু মিয়া সোমবার দিনগত গভীর রাত সাড়ে ৩টায় তার স্বজনদের সাথে সিলেট থেকে জামালপুরে আসে। এ সময় জামালপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ শাহাবুদ্দিন খান তার বাসায় ফজলুকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়। এরপর ফজলু মিয়া দীর্ঘ ২৫ বছর পর জামালপুরে নিজ গ্রামের বাড়ি শাহবাজপুর ইউনিয়নের সাউনিয়া পৌঁছায়। এ সময় গভীর রাতেই প্রতিবেশীরা ফজলুকে একনজর দেখতে তার বাড়িতে ভীড় জমায়।

ফজলু মিয়া দীর্ঘদিন পর নিজের গ্রামের বাড়িতে ফেরায় তার স্বজনসহ প্রতিবেশীরা খুশি হলেও বিনা অপরাধে তার ২২ বছর কারাভোগের সুষ্ঠু বিচার প্রার্থনা করেন।  ফজলু মিয়া অস্পষ্ট ভাষায় জানান, অনেকদিন পর বাড়িতে ফিরে ভালো লাগছে, মাকে দেখতে পারছে।

নানা মৌলভী হাসমত উল্লাহ বলেন, জামালপুরের জেলা প্রশাসক আর সাংবাদিকদের সহযোগিতায় আমরা ফজলুকে আজ ফিরে পেয়েছি, আমরা এখন অনেক খুশি। তবে বিনা অপরাধে কারাগারে বন্দী জীবনের বিচার চান তারা।

বোন  হামিদা বেগম জানান, দীর্ঘদিন পরে হলেও নিজের ভাইকে কাছে পেয়েছি, তাই আমি আর আমার মা এখন অনেক খুশি।
জামালপুর জেলা প্রশাসন মোঃ শাহাবুদ্দিন খান জানান, ফজলুর বিনা অপরাধে কারাভোগের বিষয়টি নজরে আসার পর পরিচয় নিশ্চিত হয়ে সিলেটে যোগাযোগ করে ফজলুকে জামালপুরে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। এছাড়াও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ফজলুর জন্য জমি, বসতঘরসহ কর্মসংস্থানের ব্যবস্থার চেষ্টা করা হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published.