Search
Tuesday 19 October 2021
  • :
  • :

মুম্বাইকে হারিয়ে আইপিএল শীর্ষে ধোনির চেন্নাই

মুম্বাইকে হারিয়ে আইপিএল শীর্ষে ধোনির চেন্নাই

স্পোর্টস ডেস্ক, ২০ সেপ্টেম্বর : চেন্নাই সুপার কিংস বনাম মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ম্যাচকে আইপিএল-এর ‘এল ক্লাসিকো’ বলে ডাকা হয়। দ্বিতীয় পর্বের সূচনা তাই ভালো ম্যাচ দিয়ে হতে পারত না। মরুশহরে আইপিএলের শুরুতেই হিসাব উল্টে দিল মহেন্দ্র সিংহ ধোনির সিএসকে। মুম্বাইকে ২০ রানে হারিয়ে দিল তারা। আইপিএলের এই ম্যাচে মুম্বাইয়ের জেতার রেকর্ডই বেশি। রোববার ধোনিরাই শেষ হাসি হাসলেন।

শুরুটা দুর্দান্তভাবে করেছিল সিএসকে। দিনের পঞ্চম বলেই টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ফ্যাফ দু’প্লেসিকে ফিরিয়ে দেন তিনি। সরাসরি অ্যাডাম মিলনের হাত ক্যাচ তুলে দেন দু’প্লেসি। পরের ওভারে ফের ঝটকা। এবার মইন আলিকে তুলে নেন মিলনে। এর আগে প্রথম পর্বে মইনকে তিন নম্বরে নামানোর ফাটকা কাজে লেগেছিল সিএসকের। রোববার তা হয়নি।

৪ নম্বরে নেমেছিলেন অম্বাতি রায়ডু। কিন্তু তৃতীয় বলেই মিলনের ডেলিভারি সজোরে এসে লাগে তার হেলমেটে। মাথা চেপে ধরে বসে পড়েন তিনি। মাঠে কিছুক্ষণ চিকিৎসা চললেও খেলার অবস্থায় ছিলেন না রায়ডু। ফিরে যেতে হয় সাজঘরে। বদলি হিসেবে নামা সুরেশ রায়নাও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ২ ওভার যেতে না যেতেই সিএসকের টপ ও মিডল অর্ডার সাজঘরে।

রায়না ফিরতেই টিভির সামনে বসে থাকা প্রত্যেক ভারতীয় ক্রিকেটপ্রেমীর হৃদয় উদ্বেলিত হয়েছিল তাকে নামতে দেখে। দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে সিঁড়ি বেয়ে মহেন্দ্র সিংহ ধোনি নামার সময় স্টেডিয়ামের প্রত্যেকে প্রবল চিৎকার করে অভিবাদন জানালেন। তিন ওভারের মাথায় এর আগে কবে কোনো আইপিএল ম্যাচে নেমেছেন ধোনি, একথা কেউই মনে করতে পারছেন না। তার সামনে সুযোগ ছিল ঠাণ্ডা মাথায় খেলে নায়ক হয়ে ওঠার। কিন্তু সেই মঞ্চ কাজে লাগাতে পারলেন না। মাত্র ৩ রান করে ফিরে যেতে হয় তাকে।

তারপরও যে সিএসকের রান দেড়শো পেরোল, তার পেছনে একজনেরই কৃতিত্ব। তিনি রুতুরাজ গায়কোয়াড়। গত বার এই দুবাইয়ে যার অভিষেক হয়েছিল আইপিএল মঞ্চে। উল্টোদিকে একের পর এক উইকেট পড়তে থাকলেও তিনি ছিলেন অবিচল। কখনো তার সঙ্গী রবীন্দ্র জাডেজা, কখনো ডোয়েন ব্রাভো। রুতুরাজ চুপচাপ নিজের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছিলেন। একবারও ভুল করতে দেখা যায়নি। শেষ দিকে চালিয়ে খেলে দলের রান দেড়শোর গন্ডি পার করে দিলেন।

সিএসকে যেভাবে শুরু করেছিল, মুম্বাইকেও সেই অবস্থায় পড়তে হয়। পরপর চার মেরে কুইন্টন ডি’কক শুরুটা ভালো করলেও কিছুক্ষণ পরেই ফিরে যান। সূর্যকুমার যাদব ও ঈশান কিশনও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। একা কুম্ভ হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন সৌরভ তিওয়ারি। তবে সঙ্গীর অভাবে তিনিও ম্যাচ শেষ করে আসতে ব্যর্থ।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা