Search
Saturday 22 September 2018
  • :
  • :

বর্তমান সরকারের অধীনেই বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে: তোফায়েল

বর্তমান সরকারের অধীনেই বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে: তোফায়েল

ঢাকা, ১৪ জানুয়ারি : বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ‘নির্ধারিত সময়েই দেশে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সকল দল শান্তিপূর্ণভাবে এ নির্বাচনে অংশ নেবে। এতে বিএনপিও অংশগ্রহণ করবে।

সংবিধান অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের অধীনেই নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে নির্বাচন পরিচালনা করবে। এতে সরকারের কোন হস্তক্ষেপ থাকবে না। সরকার নির্বাচন কমিশনকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেবে। জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুষ্ঠু নির্বাচনের বিষয়ে নিশ্চিয়তা দিয়েছেন।’

একটি বিতর্ক প্রতিযোগিতার পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে শনিবার এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

রাজধানীর এফডিসি মিলনায়তনে ‘ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’ ও বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ‘এটিএন বাংলা’ যৌথভাবে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। ‘নির্বাচন কমিশনের প্রতি জনগণের আস্থা বেড়েছে’ শীর্ষক এ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিক্ষাথীরা অংশগ্রহণ করেন।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন দেশের সকল দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে। সে সময় বিএনপি নেত্রীর দেয়া ৭২ ঘণ্টার আলটিমেটামের মধ্যে তিনি বিএনপি নেত্রীকে ফোন করে আলোচনায় অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় ছেড়ে দেয়ার প্রস্তাবও দেন। বিএনপি নেত্রীর দেয়া শর্ত মেনে নেওয়ার পরও তারা নির্বাচনে অংশ না নিয়ে ধ্বংসাত্বক কাজে লিপ্ত হয়।’

তিনি আশা করেন, গতবারের মত ভুল সিদ্ধান্ত এবার বিএনপি নেবে না।

সভাপতির বক্তৃতায় ‘ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির’ চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, ‘বর্তমান সরকার দেশে প্রচলিত সংবিধান মোতাবেক যথাসময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণা দিয়েছে, অপরদিকে, বিএনপিসহ তাদের সহযোগী দলগুলো বলছে, কোন দলীয় সরকার ক্ষমতায় থাকলে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। দেশের মানুষ সকল দলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন চায়। নির্বাচন কমিশনের প্রতি রাজনৈতিক দল ও জনগণের আস্থা থাকা একান্ত প্রয়োজন।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজের চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমান এবং ইউনাইটেড কর্মাশিয়াল ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ সবুর।

প্রতিযোগিতায় ৩২টি সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অংশগ্রহণ করে। প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন ও রানারআপ হয় ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউএফটি)।