Search
Saturday 23 March 2019
  • :
  • :

বরিশালে প্রধান শিক্ষকের কিলঘুষিতে ছাত্র অজ্ঞান

বরিশালে প্রধান শিক্ষকের কিলঘুষিতে ছাত্র অজ্ঞান

বরিশাল, ২০ সেপ্টেম্বর : ক্লাসের ফাঁকে পানি পান করতে যাওয়ায় বরিশালের বাবুগঞ্জ সরকারি পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রনজিৎ বাড়ৈর বিরুদ্ধে এক ছাত্রকে কিলঘুষি মারার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনার প্রতিবাদে বিদ্যালয়ে ৪ শতাধিক শিক্ষার্থী বিক্ষোভ করে ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দেয়। পরে শিক্ষা কর্মকর্তা ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। সহপাঠীরা আহত শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার বাবুগঞ্জ সরকারি পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভোকেশনাল শাখার মেকানিক্যাল বিভাগের নবম শ্রেণির ছাত্র মোঃ রিয়াজ বেপারী ক্লাসের ফাঁকে পানি পান করতে যায়। প্রধান শিক্ষক রনজিৎ বাড়ৈ ওই ছাত্রকে ক্লাসের বাইরে দেখে উত্তেজিত হয়ে প্রকাশ্যে বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে কিলঘুষি মারে। এক পর্যায়ে ওই ছাত্র অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। আহত ছাত্র মোঃ রিয়াজ উপজেলার চাঁদপাশা ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামে মোঃ মাজেদ বেপারীর পুত্র।

এ ঘটনার প্রতিবাদে বিদ্যালয়ের ৪ শতাধিক শিক্ষার্থী বিক্ষোভ ও তাৎক্ষণিক ক্লাস বর্জন করে। এদিকে প্রধান শিক্ষক কর্তৃক শিক্ষার্থী নির্যাতনের সংবাদে অভিভাবকরা বিদ্যালয়ে ছুটে এলে প্রধান শিক্ষক বাবুগঞ্জ থানায় গিয়ে ওই ছাত্রের নামে মামলার প্রস্তুতি নেয় বলে জানিয়েছেন অভিভাবকরা। পরে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বীথিকা সরকার, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ করিম লাভু, ছাত্রলীগের সভাপতি মৃধা মু. আক্তার উজ জামান মিলনের নেতৃত্বে এক জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রধান শিক্ষক চড়-থাপ্পড়ের কথা স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করেন।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রনজিৎ বাড়ৈ সাংবাদিকদের বলেন, স্কুলের দ্বিতীয় তলায় একটি কক্ষে শিক্ষকদের সভা চলাকালে নবম শ্রেণির ভোকেশনাল শাখার মেকানিক্যাল বিভাগের শিক্ষার্থীরা গোলমাল করছিল। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে তিনি রিয়াজ বেপারী নামে ওই ছাত্রকে চড়-থাপ্পড় দেন।

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মিলন বলেন, প্রধান শিক্ষক কর্তৃক ছাত্র নির্যাতনের খবর পেয়ে দ্রুত বিদ্যালয়ে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের উত্তেজনাকর পরিস্থিতি থেকে শান্ত করেছি। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

এ ব্যাপারে বাবুগঞ্জ থানার ওসি দিবাকর চন্দ্র দাস বলেন, ছাত্র নির্যাতনের সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিক বিদ্যালয়ে ছুটে যান এবং শিক্ষার্থীদের বুঝিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। সূত্র: আলোকিত বাংলাদেশ