স্পোর্টস ডেস্ক, ১৬ সেপ্টেম্বর : হোক না ‘এ’ দলের লড়াই, তাতে কী! গত জুলাইয়ে বাংলাদেশে এসে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ২-১ ব্যবধানে হেরে গিয়েছিল ভারত। সেই গাত্রদহন এখনও তাদের পোড়াচ্ছে। যে কোনো মূল্যে প্রতিশোধ নিতে চায় তারা। আজ থেকে শুরু হতে চাওয়া দুই দেশের ‘এ’ দলের তিন ম্যাচের বেসরকারি ওয়ানডে সিরিজটাকেই তাই পাখির চোখ করেছে ভারতীয়রা। ভারতীয় ‘এ’ দলের সবচেয়ে বড় তারকা অভিজ্ঞ সুরেশ রায়না বলেই দিয়েছেন, এটা তাদের জন্য প্রস্তুতির সিরিজ নয়, প্রতিশোধের সিরিজ। ভারতের জ্বলুনিটা বোঝা যাচ্ছে নিশ্চয়ই! সেটা দীর্ঘতর করতে বাংলাদেশ যে একবিন্দুও পরিকল্পনায় ছাড় দেবে না, ভূমিকাংশ তো তারই প্রমাণ!

মুমিুনল হকের নেতৃত্বে বাংলাদেশের যে ‘এ’ দলটা ভারতে খেলতে গেছে, সেটা আসলে বাংলাদেশের ‘মূল’ দলই। ১৫ সদস্যের স্কোয়াডের ১৪ জনই যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের অভিজ্ঞতায় ঋদ্ধ! তার চেয়েও বড় কথা হলো, এই দলটির ১০ জন ক্রিকেটারই ছিলেন ভারতকে হারানো সেই স্কোয়াডে। যদিও, সবারই মাঠে নামা হয়নি। এমন একটা দল ‘এ’ দলের মোড়কে ভারত খেলতে গিয়েছে বলেই হয়তো বেশ তেতে আছেন ভারতীয় ‘এ’ দলের ক্রিকেটাররা। সুরেশ রায়নার কণ্ঠে সেটারই যেন প্রতিধ্বনি, ‘আমি আসলে বলতে পারব না যে, এগুলো প্রস্তুতিমূলক ম্যাচ। কারণ আমরা বাংলাদেশের কাছে একটা সিরিজ হেরেছি। ভারতীয় ‘এ’ দল গত কয়েকটি সিরিজে ভালো করেছে। ফলে, আমাদের খুব ভালো খেলতে হবে।’

বাংলাদেশ ‘এ’ দলকে কতটা সমীহ করছে ভারতীয়রা, এটা রায়নার বক্তব্য থেকেই পরিষ্কার। সে কারণেই রায়না সুশৃঙ্খল ক্রিকেট খেলার ওপরও জোর দিয়েছেন তার বক্তব্যে। তার মতে, ‘এই তিনটা খুবই মানসম্পন্ন আন্তর্জাতিক (বেসরকারি) ম্যাচ হতে যাচ্ছে। আমাদের মাঠে অবশ্যই ভালো খেলতে হবে এবং অবশ্যই সুশৃঙ্খল থাকতে হবে। আমি গত ১০-১৫ বছর ধরে সেটাই করে আসছি।’ ২০০৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষিক্ত রায়না যেন নিজের অভিজ্ঞতা দিয়েই শানিত করতে চাইছেন তার বাকি সতীর্থদের।

বাংলাদেশের দলটি সন্দেহাতীতভাবেই ভারতীয় দলটির চেয়ে অভিজ্ঞ। ভারতীয় দলের নেতৃত্বে আছেন ২০১২ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ২২ বছর বয়সী উন্মুক্ত চাঁদ। তার নিজেরই এখন পর্যন্ত কোনো আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচে খেলার অভিজ্ঞতা হয়নি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেছেন শুধু রায়নাসহ সাতজন। তবে, রায়না ছাড়া কেউই নিয়মিত নন। কেদার যাদব, ধাওয়াল কুলকার্নি, মনিশ পাণ্ডে, সাঞ্জু স্যামসন, কর্ন শর্মা ও বরুণ অ্যারোন কেউই ভারতীয় দলে স্থান পাকা করতে পারেননি। অবশ্য, ভারতীয় ‘এ’ দলে সুযোগ পাওয়া এই ক্রিকেটারদেরই ভবিষ্যতের তারকা হিসেবে ভাবা হচ্ছে বলে বাংলাদেশের অভিজ্ঞ দলটার জন্য লড়াইটা ঠিক সহজ-সরল হবে না। সঙ্গে যোগ করতে হবে, এই দলের কোচ ভারতীয় ব্যাটিং কিংবদন্তি রাহুল দ্রাবিড়!
দেশ ছাড়ার আগে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের অধিনায়ক মুমিুনল হক সংবাদ সম্মেলনে বলে গিয়েছিলেন, ‘ওরা জানে, আমরা ভালো দল। বাংলাদেশ এখন ভালো ক্রিকেট খেলছে। এখানে আমদের দশজন টেস্ট খেলোয়াড় আছে। আমরা ভালো ক্রিকেট খেলব।’

১০ জন টেস্ট আর ১৪ জন আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ক্রিকেটার। বাংলাদেশ ‘এ’ তো পরিষ্কার ফেভারিট। সেটা এখন অনূদিত করার পালা!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *