Search
Tuesday 19 February 2019
  • :
  • :

নিখোঁজের ২২ দিন পর ব্যবসায়ীর ৬ টুকরা লাশ উদ্ধার

নিখোঁজের ২২ দিন পর ব্যবসায়ীর ৬ টুকরা লাশ উদ্ধার

নারায়ণগঞ্জ, ১০ জুলাই : নিখোঁজের ২২ দিন পর প্রবীর চন্দ্র ঘোষ নামে নারায়ণগঞ্চের এক স্বর্ণ ব্যবসায়ীর খণ্ডিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার মধ্যরাতে শহরের আমলপাড়া এলাকার একটি বাড়ির সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে তার লাশের ছয় টুকরা উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ।

নিহত স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর ঘোষ শহরের কালীরবাজারের ভোলানাথ জুয়েলার্সের মালিক। গত ১৮ জুন থেকে নিখোঁজ ছিলেন তিনি। তার সন্ধান দাবিতে ২২ দিন ধরে বিভিন্ন সময়ে ব্যবসায়ী, নিহতের স্বজন, বিভিন্ন সংগঠন ও পরিবারের লোকজন মানববন্ধন ও সমাবেশ করে আসছিল। এর মধ্যে নিহতের পরিবার প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপিও প্রদান করেছিলেন।

গত ১৮ জুন রাতে বাসা থেকে বের হয়ে প্রবীর নিখোঁজ হন। পরদিন তার বাবা ভোলানাথ ঘোষ বাদি হয়ে সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপরও খোঁজ না মেলায় সেটি মামলায় রুপান্তরিত হয়।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শরফুদ্দিন বলেন, নিহত প্রবীর ঘোষের ঘনিষ্ঠ বন্ধু পিন্টু দেবনাথই তার খুনি। রোববার তাকে ও তার সঙ্গে বাপন ভৌমিক নামে ২ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। সোমবার সন্ধ্যার পর পিন্টু মুখ খুলতে শুরু করে। এক পর্যায়ে পিন্টু শিকার করে তার পরিকল্পনাতেই প্রবীরকে খুন হয়েছে। গত ১৮ জুন রাতে অপহরণের পর সেই রাতেই তাকে হত্যা করে লাশ খণ্ড খণ্ড করে তার ভাড়া বাসার সেপটিক ট্যাঙ্কে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

পিন্টুর দেওয়া তথ্যমতে, সোমবার মধ্যরাতে শুরু হয় লাশের সন্ধানে অভিযান। এরপর পুলিশ পিন্টুর ভাড়া বাসার সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় প্রবীরের মাথা, দেহ ও দুই হাত উদ্ধার করে।

যে বাড়ির সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে প্রবীরের খণ্ডিত লাশ উদ্ধার করা হয় সেটি প্রবীরের জুয়েলারি দোকান থেকে মাত্র ৩টি বাড়ি দূরে। তার বন্ধু অভিযুক্ত খুনি পিন্টু স্বর্ণশিল্পালয় নামে অপর একটি জুয়েলার্সের মালিক। আর আটক বাপন ভৌমিক অপর একটি জুয়েলারির কর্মচারী।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরফুদ্দিন আরও জানান, প্রবীর নিখোঁজ হবার পর আমরা পিন্টুকে এর আগেও ৩ বার জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। কিন্তু তার বাইপাস সার্জারি হওয়ায় তাকে সেভাবে জিজ্ঞাসা করা যায়নি। নিহত প্রবীরই তাকে কয়েক বছর আগে ভারত থেকে বাইপাস সার্জারি করিয়ে এনেছিলেন। তাদের মধ্যে কী নিয়ে দ্বন্দ্ব তা এখনও জানা যায়নি। সূত্র: সমকাল