Search
Saturday 30 May 2020
  • :
  • :

দেশে এখন করোনা আক্রান্ত কেউ নেই: আইইডিসিআর

দেশে এখন করোনা আক্রান্ত কেউ নেই: আইইডিসিআর

ঢাকা, ১৪ মার্চ : বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত তিনজনের মধ্যে দু’জন আগেই সেরে উঠেছেন। সর্বশেষ বাকি একজনের নমুনা পরীক্ষা করেও করোনা নেগেটিভ এসেছে। আরেকবার পরীক্ষার পর নেগেটিভ এলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)।

আজ শনিবার (১৪ মার্চ) সকালে রাজধানীর মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এর সম্মেলন কক্ষে করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা এ তথ্য জানান।

তিনি জানান, করোনা আক্রান্ত তিন জনের এক জন ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি চলে গেছেন। দুই দুইবার পরীক্ষার পর নেগেটিভ আসায় অন্য একজন ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি চলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিলেও শেষমেশ পারিবারিক কারণে তিনি বাড়িতে যেতে না চাওয়ায় এখনও হাসপাতালেই আছেন। বাকি একজনের পরীক্ষার টেস্টেও ফলাফলে করোনা নেগেটিভ এসেছে। দ্বিতীয় বার টেস্টি যদি নেগেটিভ আসে, তাহলে তিনি ছাড়পত্র নিয়ে বাড়িতে চলে যেতে পারবেন।

ডা. সেব্রিনা আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আশঙ্কায় ২৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যদিও কেউ শনাক্ত হয়নি। এখন পর্যন্ত ৯ জন হাসপাতালে আইসোলেশনে আছেন। এছাড়া ৪ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা আছে।

শনিবার ইতালি থেকে দেশে ফেরা বাংলাদেশিদের প্রসঙ্গে আইইডিসিআর পরিচালক বলেন, ইতালির বিভিন্ন জায়গা থেকে দেশে ফেরা ১৪২ জন বর্তমানে হাজী ক্যাম্পে অবস্থান করছেন। তাদের প্রাথমিকভাবে পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে বিস্তারির জেনে ও দরকারি পরীক্ষানিরীক্ষার পর পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে করোনা প্রতিরোধের অংশ হিসেবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠা বন্ধ প্রসঙ্গে সেব্রিনা বলেন, স্কুল-কলেজ বন্ধ করার মতো কোনো পরিস্থিতি এখনও সৃষ্টি হয়নি।

ডা. সেব্রিনা ফ্লোরা আরও বলেন, যারা বিদেশ থেকে আক্রান্ত দেশ থেকে আসছেন তারা ১৪ দিন নিজেই সঙ্গরোধে (কোয়ারেন্টাইন) বাড়িতেই থাকুন। যদি বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন হয় সে ক্ষেত্রে মাস্ক ব্যবহার করুন। যারা বিদেশে আছেন, তারা যেন বিদেশ থেকে চলে না আসেন। কারণ তাদের মাধ্যমে করোনার সংক্রমণ হবে দেশে। তারা যে বিমানবন্দর থেকে আসবেন তাদেরও সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা থাকতে পারে। অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সভা-সেমিনার না করার অনুরোধ জানিয়েছি।