Search
Thursday 19 May 2022
  • :
  • :

ডিপেকে সতর্কই করে দিলেন ফন হাল

ডিপেকে সতর্কই করে দিলেন ফন হাল

স্পোর্টস ডেস্ক : মৌসুমের শুরুটা চমৎকার হয়েছিল মেমফিস ডিপের। কিন্তু তারপর কি যে হলো তার! ডিপেকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। একাদশেও জায়গা হারিয়েছেন ২১ বছরের এই বছরের ডাচ উইঙ্গার। শোনা যায় তার ঔদ্ধত্ব সমস্যা সৃষ্টি করেছে। কিন্তু ম্যানচেস্টার বড় কঠিন জায়গা। পেশাদার ফুটবলের অন্যতম বিশ্বসেরা ক্লাব এটি। আর ক্লাবটির কোচ লুই ফন হাল সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, ক্লাবের দর্শনের সাথে মানিয়ে নিতে হবে ডিপেকে। নইলে বরণ করতে হবে আনহেল দি মারিয়া ও রাদামেল ফ্যালকাওয়ের পরিণতি।

২০১৪-১৫ মৌসুমে দি মারিয়া ও ফ্যালকাও আসেন ম্যানইউতে। মোনাকো থেকে ধারে এসেছিলেন ফ্যালকাও। আর দি মারিয়া রিয়াল মাদ্রিদ থেকে এসেছিলেন ম্যানইউর ক্লাব রেকর্ড ৫৯.৭ মিলিয়ন পাউন্ডে। কিন্তু ক্লাবের সাথে মানিয়ে নিতে পারেন নি দুজনার কেউ। ফর্ম পড়ে গেছে। তারপর ফ্যালকাও গেছেন চেলসিতে, দি মারিয়া প্যারিস সেন্ত জার্মেইয়ে।

৩৫ মিলিয়ন পাউন্ডে এই মৌসুমেই পিএসভি আইন্দহোফেন থেকে ম্যানচেস্টারে এসেছেন ডিপে। কোচের চোখের আড়াল হয়ে যাচ্ছেন প্রায় এখনই! শনিবার এভার্টনের বিপক্ষে ম্যানইউর ৩-০ গোলের জয়ের ম্যাচে তাকে খেলানো হয়নি। বসে ছিলেন সাইডবেঞ্চে।

ম্যানইউ ম্যানেজার ফন হাল বলেছেন, “কিছু খেলোয়াড় দলের দর্শনের সাথে মানিয়ে নিতে পারে না। এটা আগে থেকে বোঝা যায় না। কারণ খেলোয়াড়ের মধ্যে অনেক গুন দেখেন। ডিপের সেই গুনগুলো দলের কাজে লাগাতে হবে।” গেল বছরের শিক্ষা থেকে ফন হাল বলেছেন, “এটা দি মারিয়া ও ফ্যালকাওয়ের ব্যাপারেও ঘটেছিল। দুজনই অসাধারণ খেলোয়াড়। এটা শুধু ডিপের ক্ষেত্রে ঘটছে না।”

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ প্লে অফে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে গোল করে চমৎকার শুরু করেছিলেন ডিপে। এরপর চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও গোল করেছেন। কিন্তু প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে সুবিধা করতে পারছেন না। তবে তাকে নিয়ে এখনো আশাবাদী কোচ। “আমার কি তার ওপর এখনো বিশ্বাস আছে? অবশ্যই।” ফন হাল বলেছেন, “তরুণ খেলোয়াড়দের সমস্যা হলো তারা ধারাবাহিক না। তাদের সময় দিতে হয়।” তিনি আরো বলেছেন যে তার অ্যাসিসট্যান্ট ম্যানেজারে রায়ান গিগস এই খেলোয়াড়কে নিয়ে কাজ করছেন। পরামর্শ দিচ্ছেন। তবে ফন হালের বিশ্বাস, “নিজের কর্মকাণ্ডের জন্য খেলোয়াড় নিজেই দায়ী।”




Leave a Reply

Your email address will not be published.