Search
Thursday 17 January 2019
  • :
  • :

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ঋণমান প্রকাশ

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের ঋণমান প্রকাশ

ডেইলি রিপোর্ট ডেস্ক : দীর্ঘমেয়াদে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের ঋণমান ‘ডাবল এ প্লাস’ ও স্বল্পমেয়াদে ‘এসটি-ওয়ান’। ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত নিরীক্ষিত, ২০১৭ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন ও হালনাগাদ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে সম্প্রতি এ প্রত্যয়ন করেছে ক্রেডিট রেটিং ইনফরমেশন অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেড (সিআরআইএসএল)।

চলতি হিসাব বছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৯১ পয়সা, আগের বছর একই সময়ে যা ছিল ৩ টাকা ২৯ পয়সা। ৩১ মার্চ এর শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়ায় ৮৭ টাকা ৯৬ পয়সায়।

৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০১৬ হিসাব বছরের জন্য ৩০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে ডাচ্-বাংলা। গেল হিসাব বছরে কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ৮ টাকা ৮১ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ১৫ টাকা ১০ পয়সা। ৩১ ডিসেম্বর এর এনএভিপিএস দাঁড়ায় ৮৮ টাকা ৩০ পয়সায়।

২০১৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৪০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ পেয়েছেন ডাচ্-বাংলার শেয়ারহোল্ডাররা।

ডিএসইতে সর্বশেষ ১০০ টাকায় ডাচ্-বাংলার শেয়ার হাতবদল হয়। সমাপনী দর ছিল ১০০ টাকা ১০ পয়সা, আগের কার্যদিবসেও যা ছিল ১০০ টাকা ১০ পয়সা। গত এক বছরে এ শেয়ারের দর ৯৯ টাকা থেকে ১২৪ টাকার মধ্যে ওঠানামা করে।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংক ২০০১ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ৪০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে বর্তমানে এর পরিশোধিত মূলধন ২০০ কোটি টাকা। রিজার্ভ ১ হাজার ৫০৪ কোটি ৯১ লাখ টাকা। কোম্পানির ৮৭ শতাংশ শেয়ারই এর উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে, প্রতিষ্ঠান ৬ দশমিক ৩৬, বিদেশী দশমিক ৩০ ও বাকি ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।

সর্বশেষ নিরীক্ষিত মুনাফা ও বাজারদরের ভিত্তিতে ডাচ্-বাংলা শেয়ারের মূল্য-আয় (পিই) অনুপাত ১১ দশমিক ৩৬, হালনাগাদ অনিরীক্ষিত মুনাফার ভিত্তিতে যা ৮ দশমিক ৬।