Search
Friday 16 November 2018
  • :
  • :

জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ২৯৫

জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ২৯৫

স্পোর্টস ডেস্ক, ৫ নভেম্বর : একদিনের ক্রিকেটে বাংলাদেশের সাফল্য যতটা নজরকাড়া, ঠিক ততটা ম্রিয়মান টেস্টে ক্রিকেটে। ক্রিকেটের এই অভিজাত ফরম্যাটে টাইগাররা বরাবরই দুর্বল। ওয়ানডে ক্রিকেটে যেখানে আসে নিয়মিত সাফল্য সেখানে টেস্ট ক্রিকেটে আসে মাঝেসাঝে।

সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে তিন নভেম্বর শনিবার থেকে শুরু হয় দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট। প্রথম ইনিংসে আগে ব্যাট করে জিম্বাবুয়ে দশ উইকেট হারিয়ে তোলে ২৮২ রান। বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে খেলতে নেমে ভয়াবহ ব্যাটিং ব্যর্থতায় ১৪৩ রানে অলআউট হয়ে যায়। জিম্বাবুয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ১৩৯ রানের লিড নিয়ে খেলতে নেমে ১৮১ রানে সবকটি উইকেট হারায়। জিম্বাবুয়ের দেওয়া ৩২০ রানের টার্গেট ডিঙিয়ে টাইগারদের জয় পেতে হলে গড়তে হবে নতুন রেকর্ড।

পাহাড়সম রানের চাপ মাথায় রেখে দ্বিতীয় ইনিংসে কোনো উইকেট না হারিয়েই তৃতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। ১০ ওভার ১ বল খেলে কোনো উইকেট না হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৬ রান। লিটন দাস ১৪ ও ইমরুল কায়েস ১২ রানে অপরাজিত আছেন। হাতে দশ উইকেট ও দুইদিন রয়েছে টাইগারদের। জয়ের জন্য প্রয়োজন ২৯৫ রানের।

এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলে আসার পর টাইগাররা দেশের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজে ধবল ধোলাই করেছেন জিম্বাবুয়েকে। কিন্তু তাদের বিপক্ষেই সাদা জার্সিতে নেমেই যেন ব্যাট চালাতে ভুলে গেছেন মাহমুদুল্লাহরা। টেস্টে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি লড়াইয়ে সাফল্য প্রায় সমান-সমান।

এখন পর্যন্ত ১৪ বারের মুখোমুখি লড়াইয়ে বাংলাদেশ জয় পায় ৬টিতে আর জিম্বাবুয়ে জয় পায় পাঁচটিতে। সিলেটে চলমান দুই টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্টে ইতিহাস কথা বলছে জিম্বাবুয়ের পক্ষেই। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করে ৩শ’র বেশি রানের লিড দিয়ে দিয়েছে তারা।

অন্যদিকে বাংলাদেশ কখনো ৩ শতাধিক রান তাড়া করে জেতেনি। সর্বোচ্চ ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেন্ট জর্জেসে ২১৫ রানের লক্ষ্য তাড়া করে জিতেছিলেন টাইগাররা। আর দেশের মাটিতে রান তাড়া করে জিতেছিল একবারই।

তাও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুরে ২০১৪ সালে ১০১ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে তিন উইকেটে জয় এসেছিল। তবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ ছয় টেস্টের সবকটিতেই জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। দেশের মাটিতে চারটি এবং জিম্বাবুয়ের মাটিতে দুটি টেস্টে জিতেছিলেন টাইগাররা।

জিম্বাবুয়ে ১ম ইনিংস : ১১৭.৩ ওভারে ২৮২ (শেন উইলিয়ামস ৮৮, হ্যামিলটন মাসাকাদজা ৫২, মুর ৬৩*, চাকাভা ২৮, ওয়েলিংটন মাসাকাদজা ৪, মাভুটা ৩, জার্ভিস ৪, চাটারা ০; আবু জায়েদ ২১-৩-৬৮-১, তাইজুল ৩৯.৩-৭-১০৮-৬, আরিফুল ৪-১-৭-০, মিরাজ ২৭-৮-৪৫-০, নাজমুল অপু ২৩-৬-৪৯-২, মাহমুদউল্লাহ ৩-০-৩-১)

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস : ৫১ ওভারে ১৪৩ (লিটন কুমার দাস ৯, ইমরুল কায়েস ৫, মুমিনুল হক ১১, নাজমুল শান্ত ৫, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ০, মুশফিকুর রহিম ৩১, আরিফুল হক ৪১*, মেহেদী মিরাজ ২১, তাইজুল ৮, নাজমুল ইসলাম ৪, রাহী ০; কাইল জার্ভিস ১০-২-২৮-২, চাতারা ১০-৪-১৯-৩, সিকান্দার রাজা ১২-২-৩৫-৩, শন উইলিয়ামস ৪-০-৫-১)

জিম্বাবুয়ে দ্বিতীয় ইনিংস : ৬৫.৪ ওভারে ১৮১ ( হ্যামিলটন মাসাকাদজা ৪৮, টেইলর ২৪, উইলিয়ামস ২০, সিকান্দার রাজা ২৫, চাকাব্বা ২০, ওয়েলিংটন মাসাকদজা ১৭; তাইজুল ২৮.৪-৮-৬২-৫, মিরাজ ১৯-৭-৪৮-৩, নাজমুল অপু ৬-১-২৭-২)