Search
Thursday 20 September 2018
  • :
  • :

চার জেলায় মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত ৫

চার জেলায় মাদকবিরোধী অভিযানে নিহত ৫

ঢাকা, ১১ জুলাই : চার জেলায় র‌্যাব ও পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযানকালে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পাঁচজন নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ও বুধবার সকালে বন্দুকযুদ্ধে কুষ্টিয়ায় দুজন, লক্ষ্মীপুরে একজন, কেরানীগঞ্জে একজন ও নাটোরে একজন নিহত হয়েছেন।

র‌্যাব ও পুলিশের দাবি, নিহতরা শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থাকায় একাধিক মামলা রয়েছে।

আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

কুষ্টিয়া : জেলার মিরপুরে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ফুটু ওরফে মোন্না (৩৫) ও রাসেল আহম্মেদ (৩০) নামে দুই যুবক নিহত হয়েছেন।

র‌্যাবের দাবি, নিহতরা এলাকার দুই শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। নিহত ফুটু ওরফে মোন্না কুষ্টিয়া শহরের রাজারহাট মোড় এলাকার মৃত আহম্মদ আলীর ছেলে ও রাসেল আহম্মেদ একই এলাকার রবিউল ইসলামের ছেলে। সম্পর্কে নিহত দুজন আপন মামা-ভাগ্নে।

র‌্যাব-১২ এর কুষ্টিয়া কমান্ডার মোহাইমেনুর রশীদ জানান, ভোর ৫টার দিকে মিরপুর উপজেলার আমবাড়িয়া ইউনিয়নের জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে একদল মাদক ব্যবসায়ী অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদ আসে। এর ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। র‌্যাবেরর উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা তাদের ওপর গুলি চালান। এ সময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি করে। একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটলে আহতাবস্থায় ফুটু ও রাসেল নামে দুই শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে ভোর ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি নাইম এমএম পিস্তল, একটি দেশি ওয়ান শুটারগান, ২টি কার্তুজ, ১২ রাউন্ড গুলি, ৪০ লিটার চোলাই মদ, ১৫০০ পিস ইয়াবা ও ২৩০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছেন র‌্যাব সদস্যরা।

নিহত ওই দুই মাদক ব্যবসায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর ও এনএসআইয়ের তালিকাভুক্ত বলে জানান র‌্যাবের এ কর্মকর্তা।

লক্ষ্মীপুর : রায়পুর উপজেলায় ২২ মামলার আসামি ছিনতাইকালে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সোহেল রানা ওরফে সুরাইয়া সোহেল (৩২) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।

পুলিশের দাবি, নিহত সোহেল রানা মাদক ব্যবসায়ী।নিহত সোহেল একই উপজেলার দেনায়েতপুর গ্রামের মৃত আবদুল মুনাফের ছেলে। তার বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি ও মাদকসহ ২২টি মামলা রয়েছে।

রায়পুর থানার ওসি আজিজুর রহমান মিয়া জানায়, মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে লক্ষ্মীপুর শহরের ঝুমুর সিনেমা হল এলাকা থেকে সোহেল রানাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তার দেয়া তথ্যমতে রায়পুরের চরপাতা ইউনিয়নের সিংয়েরপুল এলাকায় একটি পরিত্যক্ত ঘর থেকে ইয়াবা উদ্ধারে পুলিশ অভিযানে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সোহেল রানাকে ছিনিয়ে নিতে তার সহযোগীরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও তিন রাউন্ড গুলি ছোড়ে।

একপর্যায়ে সহযোগীদের গুলিতেই সোহেল গুলিবিদ্ধ হন।আহতাবস্থায় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরে সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সোহেল রানাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় রায়পুর থানার এসআই মোতাহের হোসেন ও গোলাম মোস্তফা আহত হয়েছেন। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, তিন রাউন্ড গুলি, ছয় রাউন্ড গুলির খোসা এবং ৩০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোহেল পুলিশের তালিকাভুক্ত ২২ মামলার আসামি। তাকে নিয়ে মাদকদ্রব্য উদ্ধারে পুলিশ অভিযানে যায়। সেখানে সহযোগীদের গুলিতেই সোহেল নিহত হন বলে জানান ওসি।

কেরানীগঞ্জ : কেরানীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মো. নুরা ওরফে নুরু (৪৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

বুধবার ভোরে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ডায়মন্ড মেলামাইন কারখানার সামনে এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটে। মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নাটোর : বড়াইগ্রাম উপজেলায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ওসমান গণি (৩৮) নামে ৫ মামলার এক আসামি নিহত হয়েছেন।

র‌্যাবের দাবি, নিহত ওসমান গণি মাদক বিক্রেতা। তার বিরুদ্ধে নাটোর জেলার বিভিন্ন থানায় মাদক ও চাঁদাবাজিসহ অন্তত পাঁচটি মামলা রয়েছে। নিহত ওসমান উপজেলার গুরুমশইল গ্রামের মৃত মনসুর আলীর ছেলে।

মঙ্গলবার রাত পৌনে ১২টার দিকে উপজেলার বাহিমালি এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থল থেকে ৭ দশমিক ৬২ বিদেশি পিস্তল, চার রাউন্ড গুলিভর্তি ম্যাগাজিন, পিস্তলের গুলির খালি খোসা, সাদা পলিথিনের প্যাকেটে রক্ষিত বাদামি রঙের ৪১০ গ্রাম হেরোইন, নগদ এক হাজার ৪১০ টাকা, চার্জার লাইট, দুটি গ্যাসলাইট, মোবাইল ফোন, দুটি ডার্বি সিগারেটের প্যাকেট এবং বিভিন্ন কালারের সাতটি স্যান্ডেল উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-৫ এর নাটোর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর শিবলী মোস্তফা জানান, রাতে বাহিমালি মোড়ে কিছু লোকের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে র‌্যাবের একটি টহল দল সেখানে যায়। একপর্যায়ে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে কয়েকজন দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয়া হলে তারা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এ সময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। পরে ঘটনাস্থলে অজ্ঞাতনামা একজনকে আহতাবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। বাকিরা পালিয়ে যান।

আহত যুবককে উদ্ধার করে বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় র‌্যাবের দুই সদস্য সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) মনজুর আহমেদ ও কনস্টেবল এনামুল হক আহত হন। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পরে বড়াইগ্রাম থানার ওসি দিলীপ কুমার দাস নিহত যুবকের নাম ওসমান নিশ্চিত করেন।

নিহত ওসমান জেলার অন্যতম শীর্ষ মাদক বিক্রেতা হিসেবে পরিচিত। তার বিরুদ্ধে নাটোর জেলার বিভিন্ন থানায় মাদক ও চাঁদাবাজিসহ অন্তত পাঁচটি মামলা রয়েছে বলে জানান ওসি। সূত্র: যুগান্তর