Search
Sunday 26 January 2020
  • :
  • :

ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে আড়াই দিনও টিকলো না আফগানিস্তান

ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে আড়াই দিনও টিকলো না আফগানিস্তান

স্পোর্টস ডেস্ক, ২৯ নভেম্বর : ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের পর আফগানিস্তান হয়তো রাগ করে বলেই দিতে পারে, ‘ভারতের মাটিতে আর টেস্ট খেলবো না।’ কেননা ওয়ানডে বা টি-টোয়েন্টিতে যেমন তেমন, টেস্ট ক্রিকেটে নিজেদের ‘সেকেন্ড হোম’ ভারতে যে যাচ্ছেতাই অবস্থা আফগানিস্তানের।

নিজেদের টেস্ট ইতিহাসের প্রথম ম্যাচ ভারতের বিপক্ষে তাদেরই মাটিতে খেলেছিল আফগানিস্তান। সে ম্যাচে মাত্র দুই দিনেই ইনিংস ও ২৬২ রানের বিশাল ব্যবধানে হেরেছিলেন রশিদ খান, আসগর আফগানরা। এরপর ইংল্যান্ডের মাটিতে আয়ারল্যান্ড ও বাংলাদেশ সফরে খেলা দুই টেস্টেই সহজ জয় পেয়েছিল টেস্টে নবীন সদস্য দেশটি।

কিন্তু ফের ভারতের মাটিতে ফিরতেই দুরাবস্থা আফগানিস্তানের। এবার তারা হেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে, ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে। উন্নতি বলতে ইনিংস পরাজয় এড়ানো এবং ম্যাচটা তৃতীয় দিনপর্যন্ত নিয়ে যাওয়া। ক্যারিবীয়দের ম্যাচ জিতে নিতে আড়াই দিনেরও কম, মাত্র সাড়ে ছয় সেশনের মতো লাগলো।

তবে একটি কৃতিত্ব দাবি করতেই পারে আফগানিস্তান! গত দেড়-দুই মাসে টেস্ট ক্রিকেটে টানা ৬টি ম্যাচ শেষ হয়েছে ইনিংস ব্যবধানের জয়ে। যেখানে ভারত জিতেছে ৪টি ও অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড জিতেছে ১টি করে ম্যাচ। ইনিংস ব্যবধানে জয়ের ধারা থামিয়ে দিয়ে, ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুইবার ব্যাটিংয়ে নামাতে পেরেছে আফগানিস্তান।

ম্যাচটি শেষ হয়ে যেতে পারতো দ্বিতীয় দিনেই। কিন্তু আফগান ওপেনার জাভেদ আহমাদির দৃঢ়তায় তৃতীয় দিনে আসে ম্যাচ। তবে আফগানদের পরাজয় লেখা হয়ে যায় দ্বিতীয় দিন শেষেই। কেননা ৯০ রানে পিছিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে খেলতে নেমে, দিন শেষে তাদের সংগ্রহ ছিলো ৭ উইকেটে মাত্র ১০৯ রান।

অর্থাৎ তিন উইকেট হাতে রেখে মাত্র ১৯ রানের লিড নিতে পেরেছিল আফগানরা। আজ (শুক্রবার) ম্যাচের তৃতীয় দিন আর মাত্র ১১ রান যোগ করতেই অলআউট হয় তারা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় মাত্র ৩১ রানের। আগেরদিন ৬২ রান করে আউট হয়েছিলেন জাভেদ। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৩ রান আসে আরেক ওপেনার ইব্রাহিম জাদরানের ব্যাট থেকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ৩টি করে উইকেট নেন রাহকিম কর্নওয়াল, রস্টোন চেজ ও জেসন হোল্ডার।

মাত্র ৩১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমেও ১টি উইকেট হারায় ক্যারিবীয়রা। প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেট নেয়া অভিষিক্ত স্পিনার আমির হামজা আউট করেন ৮ রান করে ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটকে। জন ক্যাম্পবেল ১৯ ও শাই হোপ ৬ রানে অপরাজিত থেকে দলের জয় নিশ্চিত করেন।