Search
Monday 18 November 2019
  • :
  • :

কোনো দোষ খুঁজে পাননি আদালত, জেলে যেতে হচ্ছে না স্টোকসকে

কোনো দোষ খুঁজে পাননি আদালত, জেলে যেতে হচ্ছে না স্টোকসকে

ঢাকা, ১৫ আগস্ট : রূপকথার শেষ লাইনে এমনটাই লেখা থাকত। বেন স্টোকসের মামলার পরিণতি যেন সে কথাই মনে করিয়ে দিল। ব্রিস্টলের এক নৈশ ক্লাবের বাইরে মারামারি করায় গ্রেপ্তার হয়েছিলেন ইংলিশ অলরাউন্ডার। এ ঘটনায় অ্যাশেজের মতো মহাগুরুত্বপূর্ণ সিরিজ খেলতে পারেননি। বিচারের সময় স্টোকসকে তুলনা করা হয়েছিল ফুটবলের হুলিগানদের সঙ্গে। মামলাটির রায় জানা গেল আজ। বেন স্টোকসের কোনো দোষ খুঁজে পাননি আদালত।

মজার ব্যাপার হলো, মারামারি যে হয়েছে পুলিশই এর চাক্ষুষ সাক্ষী। ভিডিও ফুটেজও রয়েছে। সে অনুযায়ী এমন ঘটনায় কেউ না কেউ তো দোষী হবেন। হয় স্টোকস কিংবা তাঁর হাতে বেদম পিটুনির শিকার হওয়া রায়ান আলী। কিন্তু আদালত আলীরও কোনো দোষ খুঁজে পাননি। দুজনই আদালতের চোখে নির্দোষ প্রমাণ হয়েছেন। এমন সংবাদের পর দুজনে হাত মিলিয়ে ব্যাপারটা আনুষ্ঠানিকভাবে মিটমাট করে নিয়েছেন।

গত বছর ২৫ সেপ্টেম্বর রাতে আলী পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছিলেন, স্টোকস তাঁকে মেরে অজ্ঞান করে ফেলেছিলেন। তাঁর বন্ধু রায়ান হেলকে স্টোকস পিটিয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছিল। দুজনের মুখ ও চোখ স্টোকসের প্রহারের চিহ্ন বহন করায় স্টোকসের ভাগ্যে কঠিন কোনো শাস্তিই দেখছিলেন অনেকেই। কিন্তু মামলার বিচার কার্যের সঙ্গে জড়িত থাকা ১২ জুরি এ ঘটনাকে ‘প্রকাশ্যে মারামারি’ হিসেবে মানতে রাজি হননি। এতেই নির্দোষ প্রমাণিত হন স্টোকস ও আলী। এ ব্যাপারে পুলিশের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘২৫ সেপ্টেম্বরের ঘটনায় আমরা নিরপেক্ষ তদন্ত চালিয়েছি। এবং মামলা করার সময় সে তদন্তের রিপোর্ট সঙ্গে দিয়েছি। মামলার প্রমাণাদি দেখে জুরিদের মনে হয়েছে এ ঘটনা প্রকাশ্যে মারামারির পর্যায়ে পরে না এবং আমরা সিদ্ধান্তকে সম্মান করি।’

এ ঘটনার শুরু থেকেই আলী ও হেলকে মারার কথা স্বীকার করে নিয়েছেন স্টোকস। তবে ইংলিশ অলরাউন্ডারের দাবি, তিনি একাজ করেছেন আত্মরক্ষার জন্য। স্টোকস আরও দাবি করেছিলেন, রাস্তায় দাঁড়ানো দুজন ব্যক্তির দিকে সমকামী বিদ্রূপ করছিলেন আলী ও হেল। তিনি তাদের বাঁচাতেই মারামারিতে জড়িয়েছিলেন। তবে আলী এ অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁরা অপরাধী, এটা নিশ্চিত না হওয়ায় জুরিরা দুজনকে নির্দোষ ঘোষণা করেছেন।

আদালতের এ রায়ের পরও স্টোকসের ঝামেলা শেষ হচ্ছে না। যেহেতু ঘটনাটি একটি সিরিজ চলাকালীন সময়ে হয়েছিল এবং সেটা রাত আড়াইটায় ঘটেছে, এর মানে স্টোকস ও ঘটনার সময় তার সঙ্গে থাকা অ্যালেক্স হেলস ইসিবির নিয়ম মানেননি। এ ঘটনায় ইসিবির শৃঙ্খলা কমিটি এখন কী শাস্তি দেয়, কিংবা অ্যাশেজ না খেলাকেই শাস্তি হিসেবে দেখানো হয়, সেটাই এখন সবার আগ্রহের বিষয়।