Search
Wednesday 18 May 2022
  • :
  • :

আর্থিক সেবার আওতায় এল অধুনালুপ্ত ছিটমহল

আর্থিক সেবার আওতায় এল অধুনালুপ্ত ছিটমহল

অর্থনৈতিক ডেস্ক : অধুনালুপ্ত ছিটমহলের বাসিন্দাদের আর্থিক সেবা পৌঁছে দিতে প্রথমবারের মতো সেখানে খোলা হয়েছে ব্যাংকের শাখা। চালু হয়েছে এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রম। গতকাল পঞ্চগড়ের দহলা খাগড়াবাড়ী অধুনালুপ্ত ছিটমহলে বাংলাদেশ ব্যাংক আয়োজিত এক সমাবেশে আর্থিক সেবার পাশাপাশি বেশকিছু উন্নয়ন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান।

এ সময় তিনি সদ্য বিলুপ্ত ছিটমহলের বাসিন্দাদের উদ্দেশে বলেন, এখন থেকে আপনারা ব্যাংকঋণসহ সব ধরনের আর্থিক সেবা পাবেন। শাখা খোলার আগ পর্যন্ত নাগরিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সেবা দেবে ব্যাংক। ৫৬টি ব্যাংক এ সেবা প্রদান নিশ্চিত করবে।

গভর্নর বলেন, বাংলাদেশের মানচিত্রে সদ্য অন্তর্ভুক্ত হওয়া ছিটমহলের বাসিন্দাদের জাতীয় অর্থনীতির মূলধারায় সংযুক্ত করতে এবং তাদের সম্ভাবনাময় উদ্যোগগুলো বিকশিত করার লক্ষ্যে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে। এ লক্ষ্যে কৃষি এসএমইসহ উৎপাদনমুখী ও পরিবেশবান্ধব খাতগুলোয় ঋণের জোগান বাড়িয়ে কৃষক ও হতদরিদ্রদের ১০ টাকায় ব্যাংক হিসাব খোলার সুযোগ দেয়া, বর্গাচাষীদের জন্য বিশেষ ঋণ, আমদানিনির্ভর ফসল চাষে কম সুদে ঋণ প্রদান, নারী উদ্যোক্তাদের সহজ শর্তে কম সুদে ঋণের সুযোগ সৃষ্টি, দ্রুত ও কম খরচে টাকা পাঠানোর জন্য মোবাইল ব্যাংকিং প্রবর্তন করা হয়েছে।

বর্তমান সরকারের রূপকল্প-২০২১ সামনে রেখে অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নে ব্যাংকিং খাত নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দারিদ্র্য নিরসনে ব্যাংকিং সুবিধার বাইরে থাকা দেশের বিশাল জনগোষ্ঠীকে আর্থিক সেবার আওতায় এনে অন্তর্ভুক্তিমূলক কার্যক্রমকে বেগবান করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এজন্য বাংলাদেশ ব্যাংক একটি স্থিতিশীল আর্থিক খাত গড়ে তুলতে ব্যাংকিং সেবায় মানবিক ধারণা প্রসারের উদ্যোগ নিয়েছে।

সমাবেশে সব ব্যাংকের পক্ষ থেকে পৃথক স্টল বসানো হয়; যার মাধ্যমে নতুন এ নাগরিকদের ব্যাংকিং সেবা সম্পর্কে ধারণা দেয়া হয়। ঋণ বিতরণ, ১০ টাকার হিসাব খোলা ও সিএসআর খাত থেকে নতুন নাগরিকদের আর্থিক সহায়তা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন গভর্নর। ওই সময় এ অঞ্চলে মানুষের মধ্যে ঋণ ও সিএসআর হিসেবে আড়াই কোটি টাকার সমপরিমাণ বিভিন্ন সামগ্রী বিতরণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিভিন্ন ব্যাংক; যার উল্লেখযোগ্য অংশ সমাবেশস্থলে বিতরণও করা হয়।

সমাবেশে আসা ছিটমহলবাসী নিজেদের ভাগ্যোন্নয়নে সিএসআরের আওতায় আর্থিক অনুদানের পাশাপাশি জামানতবিহীন সুদমুক্ত ঋণ দেয়ার ব্যবস্থা করতে গভর্নরকে অনুরোধ করেন। তাদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে ঋণ দেয়ার বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন বিভিন্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা।

এর আগে গভর্নর সিএসআর কার্যক্রম উদ্বোধন উপলক্ষে দহলা খাগড়াবাড়ী ছিটমহলে স্থাপিত দিনব্যাপী ব্যাংক মেলার বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি ন্যাশনাল ব্যাংকের ভাউলাগঞ্জ শাখা ও বুড়িমারী শাখা উদ্বোধন করেন।

এছাড়া ব্যাংকগুলোর সিএসআরের আওতায় অধুনালুপ্ত ছিটমহল এলাকায় ৩৩৪টি নলকূপ, ১৯২টি স্যানিটারি ল্যাট্রিন, ১০টি স্প্রে মেশিন, বিপুল পরিমাণ ওষুধ ও শিক্ষা কার্যক্রম আধুনিকায়নে ১৯টি কম্পিউটার, ১ হাজার ৩০০টি স্কুল ব্যাগ, ৪২ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মাণ, ১৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান, ১০০টি স্কুল বেঞ্চ, আত্মকর্মসংস্থানের জন্য ৯০টি সেলাই মেশিন, ১৮৩টি বাইসাইকেল, ১১০টি ভ্যানগাড়ি, ১৪৬ বান্ডিল ঢেউটিন, ৩০টি গরু ও দরিদ্র মানুষের শীত নিবারণে ৫ হাজার ১০০টি কম্বল বিতরণ করা হয়। এছাড়া ব্যাংকগুলো ওই এলাকায় সৌরবিদ্যুৎ স্থাপন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে কালভার্ট নির্মাণসহ বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক রংপুর অফিসের মহাব্যবস্থাপক খোরশেদ আলমের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ম. মাহফুজুর রহমান, বিভিন্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, দেবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাসনাৎ জামান চৌধুরী জজ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আ.স.ম নুরুজ্জামান।

এছাড়া ইসলামী ব্যাংকের এমডি মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান, জনতা ব্যাংকের এমডি আব্দুস সালাম, বিডিবিএল এমডি ড. জিল্লুর রহমান, ডাচ্-বাংলার এমডি শামসী তাবরেজ, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের এমডি মনজুর হোসেন, ন্যাশনাল ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত এমডি বদিউল আলম, মার্কেন্টাল ব্যাংকের এমডি এহসানুল হক, সিটি ব্যাংকের অতিরিক্ত এমডি ফারুক মইনুদ্দিন, ব্যাংক এশিয়ার ডিএমডি আরফান আলী ও সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের ডিএমডি এএমএম ফরহাদসহ বিভিন্ন ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও বক্তব্য রাখেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published.