Search
Wednesday 13 December 2017
  • :
  • :

অর্থনীতি বিটের সাংবাদিকদের নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মশালা

অর্থনীতি বিটের সাংবাদিকদের নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মশালা

ডেইলি রিপোর্ট ডেস্ক : অর্থনীতিবিষয়ক সাংবাদিকদের জন্য দিনব্যাপী কর্মশালার আয়োজন করল বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক দ্বিতীয় বারের মতো এমন কর্মশালা আয়োজন করল।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংক মিলনায়তনে কর্মশালার উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। কর্মশালা ব্যবস্থাপনায় সহায়তা করেছে অর্থনীতি বিটের রিপোর্টাদের সংগঠন ইকোনমিক রিপোর্টাস ফোরাম-ইআরএফ।

এবারের কর্মশালায় বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হার, ব্যবস্থাপনা, বৈদেশিক মুদ্রানীতি কৌশল, বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহ, বাংলাদেশ ব্যাংকের এ সংক্রান্ত কার্যক্রম, আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে বৈদেশিক মুদ্রার ব্যবহার, দেশে বিদেশি বিনিয়োগে বাংলাদেশ ব্যাংকের কার্যক্রম উদারীকরণ, বৈদেশি মুদ্রা কিভাবে মূল্যস্ফীতিকে প্রভাবিতকরণসহ নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক সুলতান আহমেদের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন- বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এসএম মনিরুজ্জামান, বাংলাদেশ ব্যাংকের চেইঞ্জ ম্যানেজমেন্ট পরামর্শক আল্লা মালিক কাজমী, ইআরএফ সভাপতি সাইফ ইসলাম দিলাল ও সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান।

কর্মশালায় বাংলাদেশ ব্যাংকের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা ছাড়াও অর্থনীতি বিটের প্রায় ৭০ জন সাংবাদিক অংশ নেন। উদ্বোধন সেশনসহ ৫টি সেশনে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষে কর্মকর্তারা একাডেমিক ও ব্যবহারিক নানা দিক তুলে ধরেন।

মুদ্রার বিনিময় হার ও বর্তমান নীতি ইস্যু নিয়ে সাংবাদিকদের জানান বাংলাদেশ ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক ড. হাবীবুর রহমান।

পরের সেশনে বৈদেশিক বিনিয়োগ, দেশি কোম্পানিগুলোর বিদেশে বিনিয়োগ কতটা যৌক্তিক, প্রবাসী আয় সংগ্রহ নিয়ে জানান বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক এএনএম আবুল কাশেম।

বৈদেশিক মুদ্রানীতি ও বিনিয়োগ নিয়ে বাস্ততা তুলে ধরেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আহমেদ জামাল, মহাব্যবস্থাপক মাসুদ বিশ্বাস। তাদের কাছে সাংবাদিকরা নানা বিষয় নিয়ে জানতে চান, বুঝতে চান।

এদিকে, কর্মশালার উদ্বোধন করে ফজলে কবির বলেন, “সাংবাদিকদের পেশাগত উৎকষর্তা অর্জন খুবই জরুরি। বিশেষ করে অর্থনীতি নিয়ে যারা রিপোর্ট করেন, তাদের অনুসন্ধানী রিপোর্ট করতে হবে। শুধু তথ্য নয়, তার সত্যতা যাচাই-বাছাই করতে হবে।”

সমাপনী সেশনে এসকে সুর চৌধুরী বলেন, “যেকোন বিটের রিপোর্টারদের থেকে অর্থনীতি বিটের রিপোর্টাদের বেশি সর্তক থাকতে হয়। তাদের একটি ভুল রিপোর্ট বড় কোনো ক্ষতি টেনে আসতে পারে। সরকারকে বিভ্রান্ত করতে পারে। তাছাড়া ওই সংবাদ মাধ্যমেরও ক্ষতি হয়। তাই এই বিটে যারা কাজ করেন তাদের পেশাগত সাধবাধনতা আশা করি আমরা।”

সাইফ ইসলাম দিলাল বলেন, “বাংলাদেশ ব্যাংকের এ ধরনের উদ্যোগ থেকে যারা অর্থনীতি নিয়ে রিপোর্ট করেন তারা নানা বিষয় জানতে পারেন।”

জিয়াউর রহমান বলেন, “ভবিষ্যতেও বাংলাদেশ ব্যাংকের এমন উদ্যোগ আশা করি অব্যাহত থাকবে।” কর্মশালা শেষে অংশগ্রহণকারীদের সনদ তুলে দেয়া হয়।