Search
Tuesday 24 May 2022
  • :
  • :

অনূর্ধ্ব ১৯ দলের নিহাদ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত

অনূর্ধ্ব ১৯ দলের নিহাদ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত

স্পোর্টস ডেস্ক, ১২ সেপ্টেম্বর : ঢাকা থেকে রাজশাহী যাচ্ছিলেন বিসিবির হাই পরফরম্যান্স (এইচপি) ইউনিটের ক্রিকেটার নিহাদ উজ জামান। পথে মারাত্মক বাস দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন তিনি। অনূর্ধ্ব ১৯ দলের এই বাঁ হাতি স্পিনারের মাথায় ১২টি সেলাই লেগেছে। জাতীয় লিগের খেলা সামনে। তাই রাজশাহী দলের ক্যাম্পে যোগ দিতে রাজশাহী যাচ্ছিলেন নিহাদ। সাথে ছিলেন রাজশাহীর আরেক বাঁ হাতি স্পিনার নাঈম ইসলাম জুনিয়র। নাইম পায়ে সামান্য আঘাত পেয়েছেন।

সিরাজগঞ্জের ফুড ভিলেজ থেকে যাত্রা শুরুর মিনিট দশেকের মধ্যে দূর্ঘটনায় পড়ে নিহাদদের বাস। বিপরীত দিক থেকে আসা একটি বাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। আরেকটি ট্রাক এসে ধাক্কা দেয় নিহাদদের বাসকে। এই দূর্ঘটনায় নিহাদের মাথার তিন জায়গায় ফেটে যায়। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। মাথার পেছনে সেলাই লেগেছে ৬টি, কপালে দুটি ও বাঁ ভ্রুর ওপরে চারটি। এখন আশঙ্কামুক্ত নিহাদ। হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে শুক্রবার রাজশাহীতে বাড়িতে ফিরেছেন। চিকিৎসকরা তাকে পূর্ণ বিশ্রাম নিতে বলেছে।

এই বাস দূর্ঘটনায় সাতজন মারা গেছেন। নিহাদের বাবা বলেছেন, তার ছেলের ভাগ্য ভালো বলে বেঁচে গেছে। নিহাদও বলেছেন তেমনটা। তবে তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন নাঈম জুনিয়রকে।

নিহাদ বলেছেন, আমার মাথা ও অন্য দুই জায়গা থেকে রক্ত বের হচ্ছিল। নাঈম ভাই আমাদের ফিজিও মুন ভাইকে ফোন করেন। তিনি বলেন আমি যেন অজ্ঞান না হয়ে পড়ি কিংবা বমি না করি। আমার অনেক রক্ত পড়ছিল। কিছুই দেখতে পারছিলাম না। আমার মাথা টি-শার্ট দিয়ে বেধে ফেলেছিলাম। নাঈম ভাই আমাকে অ্যাম্বুলেন্সে নেয়ার চেষ্টা করছিলেন। সমস্যা হলো ৭ জন মারা গেছে। ৪০ জন আহত হয়েছে। অ্যাম্বুলেন্সে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছিলাম না। দুই ঘণ্টা পর একটি বাসে করে কাছের নাটোর শহরে যাই।

নাহিদ জানাচ্ছিলেন, নাটোরে চিকিৎসকরা আমাকে দ্রুত সেলাই দিয়ে দেন। আমি আমার এক বন্ধুকে ফোন করি। সে দ্রুত এসে যায়। এরপর রাজশাহীর ইসলামী হাসপাতালে ভর্তী হই। সেখানে আবার আমার মাথায় সেলাই দেয়া হয়। শুক্রবার দুপুরে আমাকে হাসপাতাল ছেড়ে দিয়েছে। এখন আমি বাড়িতে।

গেলো অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের সদস্য ছিলেন নিহাদ। বাংলাদেশের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯ উইকেট নিয়েছিলেন। গত ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে খেলেছেন ওল্ড ডিওএইচএসের হয়ে। ফেব্রুয়ারিতে রংপুর বিভাগের হয়ে খেলেছেন একমাত্র ফার্স্ট ক্লাস ম্যাচ। ১৩টি লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ খেলে ১৪ উইকেট নিয়েছেন তিনি। তার অবস্থা সম্পর্কে জানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। বিসিবির চিকিৎসকদের সাথে কথা হয়েছে তার। নিহাদ তার রিপোর্ট পাঠিয়ে দেবেন ঢাকায়। প্রয়োজনে ঢাকায় এসে চিকিৎসা নেবেন।




Leave a Reply

Your email address will not be published.